Notice

লোডশেডিং এর সময় / শিডিউল বাংলাদেশ ২০২২ (জেলা, অঞ্চল অনুযায়ী সময়)

কারেন্ট যাওয়ার সময়সূচি

লোডশেডিং শিডিউল বাংলাদেশ ২০২২ সময়সূচী। আজ আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে এলাকাভিত্তিক ঘোষণা করা হয়েছে। 19 জুলাই থেকে এলাকাভিত্তিক বিদ্যুতের বিদ্যুত কাটা শুরু হবে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ড. সারা দেশে ইতিমধ্যেই গত কয়েক মাস ধরে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুত কাটছে, কিন্তু দিন দিন জ্বালানি খরচ বাড়ার পাশাপাশি রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে।

এলাকাভিত্তিক এই লোডশেডিং শিডিউল বাংলাদেশ ২০২২ প্রদানের মাধ্যমে বিদ্যুতের চাহিদা অনেকাংশে কমানো যায় এবং বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ অনেকাংশে কমানো যায়। তাই ১৮ জুলাই বিভিন্ন টেলিভিশন সংবাদের মাধ্যমে আমরা তথ্য পেয়েছি যে ১৯ জুলাই থেকে এই লোডশেডিং কার্যকর হবে।

এর পাশাপাশি প্রতিটি জেলার প্রতিটি এলাকায় নির্দিষ্ট সময়ে লোডশেডিং দেওয়া হবে বলে প্রতিবেশী এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করে তাদের সুবিধা দেওয়া হবে। তবে প্রতিটি এলাকায় টানা দুই ঘণ্টা লোডশেডিং এবং অন্যান্য এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহের মাধ্যমে এসব কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। তাই আজকের পোস্টের মাধ্যমে জেনে নিন আপনি যে এলাকায় থাকেন সেখানে কখন লোডশেডিং দেওয়া হবে।

আজ লোডশেডিংয়ের সময়সূচি

এত বিদ্যুত উৎপাদনের বিভিন্ন ব্যবস্থা রয়েছে, তাই জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাছাড়া এলাকাভিত্তিক এই বিদ্যুৎ সরবরাহ কমানোর কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদন কম করতে হবে এবং সেক্ষেত্রে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে।

ডেস্কও লোডশেডিং সময়সূচী 2022

আমরা যখন জানতে পারি যে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং দেওয়া হবে তখন অনেকেই জানেন না কখন লোডশেডিং দেওয়া হবে এবং এর জন্য আমাদের নির্দিষ্ট এলাকায় কখন লোডশেডিং দেওয়া হবে তা জানতে চাইতে পারেন। সেক্ষেত্রে, আপনি আমাদের ওয়েবসাইট থেকে জানতে পারেন যে আপনি যে ইলেক্ট্রিসিটি সোসাইটির আওতায় আছেন তার কাছ থেকে নোটিশ প্রদান করে এলাকা ভিত্তিক লোডশেডিং প্রদান করা হবে।

লোডশেডিং শিডিউল

বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুত সমিতি থেকে শুরু করে নেসকো এবং ডেসকো, সারা বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী বিভিন্ন সংস্থা রয়েছে। অতএব, আপনি যে মাধ্যমটির মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছেন তারা আপনার এলাকায় কখন বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে এবং কখন লোডশেডিং দেওয়া হবে সে সম্পর্কে একটি তালিকা তৈরি করেছেন এবং এই তালিকা অনুসারে আপনি জানতে পারবেন কখন থেকে কখন লোডশেডিং হবে। দেওয়া

বাংলাদেশে বিদ্যুৎ পাওয়ার কাটার সময়সূচী

আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদুল আজহার আগেই বিদ্যুৎ সংকটের কথা বলেছেন। সবকিছু সুষ্ঠুভাবে চালানোর জন্য আমাদের সরকারকে সমর্থন করতে হবে এবং আমাদের দেশকে বাঁচাতে হবে। যদিও বাংলাদেশ সরকার বিদ্যুতের ব্যবহার কমাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়। বাংলাদেশের বিদ্যুতের লোডশেডিং এলাকার দৈনিক ভিত্তিতে দুই ঘন্টা স্থায়ী হবে।

এদিকে, বাংলাদেশ সরকার চলমান বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সংকট মোকাবেলায় 19 জুলাই থেকে প্রতি সপ্তাহে একদিনের জন্য জ্বালানি স্টেশন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশে সমস্ত বাজার এবং দোকান প্রতিদিন রাত ৮টার মধ্যে বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, যখন মসজিদের এসি কেবল ছালাতের সময় চলে; বাকি সময়ও থামবে এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত চলবে না। অন্যদিকে, সব সরকারি অফিস ও বেসরকারি অফিসের সময় নাকি বাড়ি থেকে কাজ, শিগগিরই সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে। বিদ্যুত পাওয়ার কাটা এবং অন্যান্য সিদ্ধান্ত পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিকভাবে https://dpdc.gov.bd-এ লোডশেডিংয়ের সময়সূচী প্রকাশ করেছে।

শেষ কথা

রাজধানীর বাইরেও পরিস্থিতি আরও খারাপ। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত জেলাগুলো ময়মনসিংহ বিভাগে, অন্যদিকে চট্টগ্রাম, সিলেট, রংপুর, ঠাকুরগাঁও, রাজশাহী, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট এবং দিনাজপুর, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, নোয়াখালী, ফেনী ও চাঁদপুরেও লোডশেডিং বেড়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর গ্যাস সংকটে আক্রান্ত বিশ্বের দেশগুলোতে বিদ্যুৎ বিঘ্নিত হওয়ার ঘটনা বিরল নয়। বেশিরভাগই সঠিক লোড ব্যবস্থাপনার দিকে ঝুঁকছে।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্তমান জ্বালানি সরবরাহের সুষ্ঠু ও পরিকল্পিত লোড ব্যবস্থাপনা মানুষের দুর্ভোগ কমাতে পারে। সঠিক লোড ব্যবস্থাপনাই বর্তমান গ্যাস এবং বিদ্যুত সরবরাহ হ্রাস মোকাবেলার একমাত্র উপায় কারণ অন্য কোনও দৃশ্যমান উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.