Technology

ওয়েব অ্যানালিটিক্স কি? ওয়েব অ্যানালিটিক্স কিভাবে শিখবেন?

ওয়েব অ্যানালিটিক্স এর সুবিধাসমূহ, ব্যবহারবীধি, যেভাবে শিখবেন

Story Highlights
  • ওয়েব অ্যানালিটিক্স কি? সুবিধাসমূহ, ব্যবহারবীধি এবং শেখার পদ্ধতি (Paid Content)

ওয়েব অ্যানালিটিক্স হল অনলাইন প্লাটফর্ম, যা ওয়েবসাইট বা অনলাইন উপস্থিতি সহ যেকোনো ব্যবসার বা সেবা পরিমাপ ইত্যাদি করার জন্য একটি শক্তিশালী টুল। আপনার কাঙ্ক্ষিত গ্রাহকরা এবং ক্রেতারা কীভাবে আপনার অনলাইন ওয়েবসাইটগুলোর সাথে সংযুক্ত করে তা পর্যবেক্ষণ করে। সেইসব গ্রাহকদের কাছে নির্দিষ্ট পণ্যের প্রচার করার জন্য একটি ব্যবসায়িক মেট্রিক হিসাবে পরিবেশন করা এবং কোন নির্দিষ্ট গ্রাহক নির্ধারণ করা। আসুন জেনেনি ওয়েব অ্যানালিটিক্স কি? ওয়েব অ্যানালিটিক্স কিভাবে শিখবেন?

ওয়েব অ্যানালিটিক্স কি?

ওয়েব অ্যানালিটিকস হল একটি ওয়েবসাইটে ভিজিটরদের আচরণ বিশ্লেষণ করার প্রক্রিয়া। একটি ওয়েবসাইট এর ওয়েবপৃষ্ঠা, ছবি এবং ভিডিওর ব্যবহার সহ ওয়েব এর সকল কাজ পরিমাপ করার জন্য ডেটা ট্র্যাকিং, পর্যালোচনা এবং প্রতিবেদন করা জড়িত। ট্রাফিক সোর্স, রেফারিং সাইট, পেজ ভিউ এবং কনভার্সন রেট অন্তর্ভুক্ত হয় সংগৃহীত ডেটাতে ওয়েব অ্যানালিটিকস মাধ্যমে।আপনার ব্যবসায়িক সাইটের কর্মক্ষমতা পরিমাপ করতে এবং ব্যবসাকে চালিত করতে ওয়েব অ্যানালিটিকস প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা যাবে।

এক নজরে ওয়েব অ্যানালিটিক্স এর সুবিধাগুলো

অনলাইন ট্রাফিক পরিমাপ: কোন নির্দিষ্ট সময়ে আপনার ওয়েবসাইটে কতজন ব্যবহারকারী এবং দর্শক আছে, তারা ওয়েবসাইটে কি করছে, ওয়েবসাইটে কত সময় ব্যয় করছে, সেসব পরিমাপ করে দেখে।

ট্র্যাকিং বাউন্স রেট: যে ব্যবহারকারী ওয়েবসাইটটি পরিদর্শন করেছেন সেই ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা ট্র্যাক করা এবং মান উন্নত করা এবং নিশ্চিত করা যে বিষয়বস্তু ব্যবহারকারীরা যা চান তা বিশ্লেষণ করে বাউন্স রেট কমিয়ে দেবে এবং ওয়েবসাইটের লাভ বাড়াবে।

বিপণন প্রচার অপ্টিমাইজিং এবং ট্র্যাকিং: বিভিন্ন বিপণন প্রচারের জন্য, অনলাইন বা অফলাইনে এবং নির্দিষ্ট লিঙ্ক তৈরি করা যা ট্র্যাক করা যেতে পারে। বিপণন প্রচার করার পর ব্যবহারকারীদের দ্বারা কীভাবে গৃহীত হয়েছে এবং এটি লাভজনক হয়েছে কিনা সে সম্পর্কে বিশদ তথ্য প্রদান করবে।

সঠিক টার্গেট অডিয়েন্স এবং ক্যাপিটালাইজেশন: আপনার পণ্য বিপণনে এবং পরিষেবাগুলির জন্য সঠিক গ্রাহকদের খুঁজে বের করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক গ্রাহক আপনার পণ্য বিপণন প্রচারে লাভের উন্নতি ঘটাবে এবং কোম্পানির উপরই একটি ইতিবাচক মনোভাব রেখে যাবে।

ওয়েবসাইট এবং ওয়েব পরিষেবাগুলিকে উন্নত এবং অপ্টিমাইজ করে: ওয়েব অ্যানালিটিকসের মাধ্যমে, একটি কোম্পানি তার ওয়েবসাইট এবং তার পরিষেবাগুলিতে সম্ভাব্য সমস্যাগুলি খুঁজে পাবে এবং সেটার সমাধান করে পরিসেবাগুলো উন্নত করবে।

কনভার্সন রেট অপ্টিমাইজেশান (CRO): ওয়েব অ্যানালিটিক্সের সাহায্যে কনভার্সন রেট উন্নত করা, একটি কোম্পানি তার ওয়েবসাইটের লাভ এবং বিনিয়োগে রিটার্ন উন্নত করবে।

গুগল বিজ্ঞাপন এবং ফেসবুক বিজ্ঞাপন থেকে ফলাফল উন্নত করুন: অনলাইন বিজ্ঞাপন পরিচালনার ক্ষেত্রে বিশ্লেষণের একটি প্রধান ভূমিকা রয়েছে৷ দক্ষ ডেটা সংগ্রহ অনলাইন বিজ্ঞাপনের ফলাফলকে বাড়িয়ে তুলবে৷

নতুন সৃজনশীল ধারণা: আপনার ব্যবসায়িক মডেলের ডেটা বিশ্লেষণ করে নতুন সৃজনশীল ধারণা বের করা। গ্রাহক অভিজ্ঞতা সম্পর্কে আরও অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করতে সাহায্য করে।

ওয়েব অ্যানালিটিক্স কেন ব্যবহার করবেন?

ওয়েবসাইট অ্যানালিটিক্স আপনাকে প্রকৃত প্রতিবেদন এবং বিশ্লেষণ প্রদান করে। আপনার সাইটের গ্রাহকদের আচরণ পর্যবেক্ষণ; বয়স, লিঙ্গ, অবস্থান; কিভাবে তারা আপনার সাইটে এসেছে (ট্রাফিক উৎস); আপনার সাইটে সবচেয়ে জনপ্রিয় বিষয়বস্তু; আপনার মোট কনভার্সন রেট ; এবং ব্যবসায়িক কৌশলগুলি পরিকল্পনা করতে পারেন এবং আপনার ব্যবসাকে দ্রুত বৃদ্ধি করতে পারেন।

দর্শক এবং ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতাঃ যখন বড় (বা ছোট) ব্যবসায়িক সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা আসে, তখন এটা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ যে আপনার সিদ্ধান্ত আপনার বিদ্যমান গ্রাহকদের ক্ষতি না করে, বরং তাদের ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা বাড়ায়। এটি আরও পুরস্কৃত হয় যদি এটি আরও নতুন ব্যবহারকারীদের আকর্ষণ করতে পারে। সুতরাং, একটি নিরাপদ এবং জ্ঞাত সিদ্ধান্ত নিতে, আপনাকে প্রথমে আপনার দর্শকদের জানতে হবে।

আপনার সেরা বিষয়বস্তুঃ Google Analytics এবং MonsterInsights-এর মতো ওয়েবসাইট অ্যানালিটিক্স টুলগুলি আপনাকে দেখায় যে কোন বিষয়বস্তুগুলি সবচেয়ে বেশি ভিজিট করে, গড় সময়কাল, এবং পৃথক পৃষ্ঠাগুলির জন্য বাউন্স রেট পায়, যাতে আপনি আরও ভালভাবে বিশ্লেষণ করতে এবং অপ্টিমাইজ করতে পারেন৷

নিজস্ব এসইও (SEO): সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান (SEO) আপনার ব্যবসার বৃদ্ধি নির্ধারণের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলির মধ্যে একটি। আপনার ব্যবসার সাইট যত বেশি ট্রাফিক পাবে, তত বেশি লিড এবং লাভ করবে।

শীর্ষ রেফারেলগুলি ট্র্যাক এবং কৌশলঃ ওয়েবসাইট অ্যানালিটিক্স ব্যবহার করে, আপনি ট্র্যাক করতে পারেন কে আপনার ব্যবসার সাইটে সবচেয়ে বেশি ট্রাফিক রেফার করেছে। বিশ্লেষণ এবং তাদের থেকে আরও রেফারেল পেতে কি কৌশল অবলম্বন করতে হবে তা জানা যাবে।

অংশীদারিত্বের সুযোগঃ এটি ব্যবহার করে, আপনি আপনার ওয়েবসাইটে ক্লিক করা শীর্ষ লিঙ্কগুলি দেখতে পারেন যা অন্যান্য ওয়েবসাইটে যায়, বিশ্লেষণ করে এবং অংশীদারিত্বের অফার সহ সেই ওয়েবসাইটগুলিতে পৌঁছাতে পারে৷

ইকমার্স মেট্রিক্স ট্র্যাকঃ Google Analytics এবং MonsterInsights-এর মতো ওয়েবসাইট অ্যানালিটিক্স টুলগুলি আপনাকে আপনার সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ইকমার্স মেট্রিক্স যেমন মোট রাজস্ব, রূপান্তর হার, শীর্ষ পণ্য, শীর্ষ রেফারেল উত্স ইত্যাদি দেখায়।

ওয়েব অ্যানালিটিক্স এর কাজের পরিধি কেমন?

সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েব অ্যানালিটিক্স টুল হল গুগল অ্যানালিটিক্স, যদিও বাজারে আরও অনেক আছে যারা বিশেষ তথ্য প্রদান করে যেমন রিয়েল-টাইম কার্যকলাপ বা হিট ম্যাপিং।

Google Analytics: এটি একটি স্ট্যান্ডার্ড ওয়েবসাইট বিশ্লেষণ টুল, যা বিনামূল্যে এবং ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত একটি টুল।

Piwik: একটি ওপেন-সোর্স বা Google-এর মতো কাজ করে এবং একটি জনপ্রিয় ওয়েব, যা কোম্পানিগুলিকে তাদের ডেটার সম্পূর্ণ মালিকানা এবং নিয়ন্ত্রণের অনুমতি দেয়।

Adobe Analytics: অত্যন্ত কাস্টমাইজযোগ্য অ্যানালিটিকস প্ল্যাটফর্ম। এই টুলসটি Adobe Cloud এবং Adobe Target ব্যবহার করে কারণ এটি Adobe স্যুটের সরঞ্জামগুলির সাথে সহজেই একত্রিত হয়।

Kissmetrics: এটি একটি গ্রাহক বিশ্লেষণ প্ল্যাটফর্ম যা ওয়েবসাইটের ডেটা সংগ্রহ করে এবং এটিকে সহজে পড়া যায় এমন ফর্ম্যাটে উপস্থাপন করে।

Mixpanel: অ্যাডভান্সড মোবাইল এবং ওয়েব অ্যানালিটিক্স যা পেজভিউ না করে অ্যাকশন পরিমাপ করে।

Parse.ly: বিস্তারিত রিয়েল-টাইম অ্যানালিটিক্স অফার করে, বিশেষ করে প্রকাশকদের জন্য এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব অ্যানালিটিক্স।

CrazyEgg: হিট ম্যাপিং’ ব্যবহার করে ওয়েবসাইট এর কোন অংশগুলি সবচেয়ে বেশি মনোযোগ পাচ্ছে তা পরিমাপ করে।

ওয়েব অ্যানালিটিক্স এর কাজের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলছে, এইটা মূলত অ্যাডভান্সড লেভেলের স্কীলফুল কাজ, তাই এখানে আপনার কম্পিটিশন কম। তাই আপনি যদি ভালো করে কাজ শিখেন দেশের বাজারের পাশাপাশি ইন্টারনেশনাল মার্কেটেও আপনার কাজের অভাব হবে না। এখন ঘরে বসে রিমোট জবও করতে পারবেন, যা আপনার অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিরাট ভূমিকা পালন করবে, তাই অবশ্যই আপনাকে ভালো করে কাজ জানতে হবে।

ওয়েব অ্যানালিটিক্স কিভাবে শিখবেন?

ওয়েব অ্যানালিটিক্স পরিচালনার প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল আরও ভাল ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা প্রদানের জন্য ওয়েবসাইটটিকে অপ্টিমাইজ করা। এটি ওয়েবসাইট জুড়ে দর্শকদের প্রবাহ পরিমাপ করার জন্য একটি ডেটা-চালিত প্রতিবেদন প্রদান করে।

ব্যবসার লক্ষ্য নির্ধারণ: ওয়েব অ্যানালিটিক্স প্রক্রিয়ার প্রাথমিক পর্যায় হল তাদের কাঙ্খিত লক্ষ্য এবং ফলাফল সনাক্ত করা। বিক্রয় বর্ধিতকরন, ব্র্যান্ড এক্সপোজার এবং পরিমাণগত ও গুণগতমান দেখাই এর উদ্দেশ্য।

কী পারফরম্যান্স ইন্ডিকেটর (KPI): এটি একটি পরিমাপযোগ্য পরিসংখ্যান যা একটি ওয়েবসাইটে ব্যবহারকারীর আচরণ নিরীক্ষণ ও মূল্যায়ন করতে ওয়েব বিশ্লেষণে ব্যবহৃত হয়। বাউন্স রেট, ইউনিক ইউজার, ইউজার সেশন এবং অন-সাইট সার্চ কোয়েরি হল এর কিছু উদাহরণ।

কৌশল তৈরি এবং পরীক্ষা: কোম্পানীর লক্ষ্যগুলির সাথে সঙ্গতিপূর্ণ কৌশলগুলি বিকাশ করার জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া এবং ব্যবসায় নতুন কৌশল পরীক্ষা করা।

ডেটা বিশ্লেষণ: ব্যবসায় প্রাপ্ত ডেটাকে ওয়েব অ্যানালিটিক্স ফানেলের মাধ্যমে দরকারী তথ্যে পরিণত করে৷ ওয়েব অ্যানালিটিক্স শিখার জন্য দুটি পন্থা অবলম্বন করতে পারেন একটি ফ্রী মাধ্যম আর আরেকটি হলো পেইড মাধ্যম,চলুন একটু আলোচনা করি।

ফ্রী মাধ্যম: আজকাল আপনি গুগল বা ইউটিউবে ওয়েব অ্যানালিটিক্স শিখার জন্য অসংখ্য টিউটোরিয়াল পাবেন। আপনি যদি সঠিক কীওয়ার্ড দিয়ে খুঁজেন তাহলে কাঙ্খিত টিউটোরিয়াল পাবেন। এই বিষয় গুলো যথেষ্ট সময় সাপেক্ষ, আপনাকে সঠিক টিউটোরিয়াল বেছে নিতে হবে। হয়তো সব কিছু পাবেন ও না। তবে কিছুটা হলেও শিখতে পারবেন।

পেইড মাধ্যম: আজকাল ভালো কিছু শিখতে গেলে আপনাকে টাকা খরচ করে শিখতে হবে, তাই সঠিক টিউটোরিয়াল, সঠিক গাইডলাইন পেতে আপনাকে সঠিক প্রতিষ্ঠান বেঁচে নিতে হবে। তাই আমাদের দেশে এক মাত্র সঠিক গাইডলাইন পেতে আপনি bongiyo.com যাবেন। আশা করি আপনার টাকা ও সময় বিফলে যাবে না। এখানে আপনি বাংলায় শিখতে পারবেন। আর বাইরের সাইট হলো udemy.com যে কোনো স্কিল শেখার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো সঠিক দিকনির্দেশন। আর সেই সঠিক দিকনির্দেশনাই আপনাকে পৌঁছে দেবে আপনার কাঙ্খিত লক্ষ্যে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.