কবে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করা হয়?

Mujib 100 Quiz By Priyo

জিয়াউর রহমান সামরিক শাসনের মাধ্যমে কবে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করে? বিশ্বে মানবাধিকার রক্ষার জন্য হত্যাকারীদের বিচারের বিধান রয়েছে, কিন্তু বাংলাদেশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিচারের হাত থেকে রেহাই দিতে এক সামরিক অধ্যাদেশ (ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স) জারি করা হয়। পরে জেনারেল জিয়াউর রহমান সামরিক শাসনের মাধ্যমে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স নামে এক কুখ্যাত কালো আইন সংবিধানে সংযুক্ত করে সংবিধানের পবিত্রতা নষ্ট করেন। কবে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করা হয়?

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে কিুইজ প্রকিযোগিতার আয়োজন করা রয়েছে। এই কুইজ ১০০ দিন ধরে চলবে। প্রিয় ডট কম এই কুইজ প্রতিযোগিতাটি পরিচালনা করছে। প্রতিদিন ১০০জন করে বিজয়ী হবেন এবং অনেক পুরুস্কার রয়েছে।

বঙ্গবন্ধু কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করা খুবই সহজ। আপনিও চাইলে কুইজের উত্তর দিয়ে জিতে নিতে পারেন ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন সহ ১০০ জিবি মোবাইল ডাটা। প্রিয় কুইজে অংশ নিতে এবং প্রশ্নের উত্তর দিতে মাত্র ৩০ সেকেন্ড সময় লাগবে। তাই আর দেরি না করে আজকের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দিন।

২৬-০২-২০২১, আজকের প্রশ্ন হলো:

জিয়াউর রহমান কবে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করে?

বিশ্বে মানবাধিকার রক্ষার জন্য হত্যাকারীদের বিচারের বিধান রয়েছে, কিন্তু বাংলাদেশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিচারের হাত থেকে রেহাই দিতে এক সামরিক অধ্যাদেশ (ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স) জারি করা হয়। পরে জেনারেল জিয়াউর রহমান সামরিক শাসনের মাধ্যমে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স নামে এক কুখ্যাত কালো আইন সংবিধানে সংযুক্ত করে সংবিধানের পবিত্রতা নষ্ট করেন। কবে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করা হয়?

উত্তর নিচে পাবেন। আপনি কি জানেন যে শুধৃ মাত্র শেয়ার করেও আপনি প্রাইজ জিতে নিতে পারবেন। তাই আর দেরি না করে এখানে ক্লিক করে এখুনই শেয়ার করুন

ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স

  1. ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৫
  2. ১৫ই আগষ্ট ১৯৭৫
  3. ২২শে আগষ্ট ১৯৭৫
  4. ১লা সেপ্টেম্বর ১৯৭৫

উত্তরঃ জিয়াউর রহমান ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৫ ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করেন। আপনি কি জানেন যে শুধৃ মাত্র শেয়ার করেও আপনি প্রাইজ জিতে নিতে পারবেন। তাই আর দেরি না করে এখানে ক্লিক করে এখুনই শেয়ার করুন

শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারবর্গ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের আইনি ব্যবস্থা থেকে অনাক্রম্যতা বা শাস্তি এড়াবার ব্যবস্থা প্রদানের জন্য বাংলাদেশে “ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ” আইন প্রণয়ন করা হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তারিখে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ এ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়। যেহেতু বাংলাদেশ সংসদ অধিবেশনে ছিল না, সেক্ষেত্রে শেখ মুজিবের একজন ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহযোগী রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ কর্তৃক একটি অধ্যাদেশের আকারে ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ১৯৭৫ সালে এ আইনটি প্রণীত হয়। এবং শেখ মুজিবের হত্যাকান্ডের পর তিনিই দেশটির রাষ্ট্রপতি হন। এটি ১৯৭৫ সালের অধ্যাদেশ নং ৫০ নামে অভিহিত ছিল। পরে ১৯৭৯ সালে সংসদ কর্তৃক এটি অনুমোদন করা হয়। যার ফলে এটি একটি আনুষ্ঠানিক আইন হিসেবে অনুমোদন পায়। ১৯৭৯ সালের ৯ জুলাই বাংলাদেশ সংবিধানের ৫ম সংশোধনীর পর সংশোধিত আইনে এ আইনটি বাংলাদেশ সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

_ Wikipedia

কীভাবে প্রিয় / বঙ্গবন্ধু কুইজে অংশ নিবেন?

বঙ্গবন্ধু কুইজে অংশগ্রহণ করতে হলে আপনার প্রিয়.কমে একটি একাউন্ট লাগবে।

এই ক্ষেত্রে এই লিঙ্কে গিয়ে একটি একাইন্ট তৈরি করুন।

তারপর, আপনার ছবি, নাম, জন্ম তারিখ, ঠিকানা, ইত্যাদি সঠিক তথ্য দিয়ে প্রোফাইল আপডেট করুন।

তারপরে বর্তমান কুইজের প্রশ্ন দেখতে পাবেন। সেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে শেয়ার করুন।

সকল সঠিক উত্তরদ্বাতা দের মধ্যে থেকে লটারি করে বিজয়ীদের নির্বাচন করা হবে।

বঙ্গবন্ধু কুইজের ফলাফল কিভাবে জানবেন?

কুইজের রেজাল্ট বা বিজয়ীদের তালিকা একদিন পরে প্রিয়-ডট-কমে প্রকাশ করা হবে।

৫ জন বিজয়ী পাবেন একটি করে মোবাইল ফোন।

১০০ জন বিজয়ী পাবেন মোবাইল ডাটা।

প্রিয় কুইজের ফলাফল দেখুন এখানে।