গ্রী এসির দাম কত? Gree এসির নতুন মডেল ২০২২

Gree ac price

গ্রী এসির দাম কত? Gree এসির নতুন মডেল ২০২২

শীত বা গরম যেই সময়ের কথাই বলেন না কেন! মানুষের নিত্যদিনের সাথী এখন এসি। আপনিও কি এসির দাম ও গ্রী এসির নতুন মডেল সম্পর্কে জানতে চান? আপনি কি গ্রী এসির বর্তমান দাম কত জানতে চান? অথবা কিস্তিতে গ্রী এসি কেনার নিয়ম জানতে চান?আপনাদের এইসকল প্রশ্নের সমাধান গ্রী এসির আপডেট দাম ২০২২ নিয়ে হাজির হয়েছি। তাই গ্রী এসি কিস্তিতে কেনার নিয়ম বা গ্রী এসির মূল্য তালিকা ২০২২ সম্পর্কে যানতে এই পোস্টটি পড়তে থাকুন।

দেশের অর্থনীতির উন্নয়নের সাথে মানুষের ক্রয় ক্ষ্মতাও বাড়ছে তাই অনেকে এখন এসি কিনছেন। এসি যারা কিনছেন তাদের এসি কেনার আগে কিছু বিষয়ে সচেতন হতে হবে। প্রথমত, বাড়ির ধরন বা আকার বুঝে এসি কেনা উচিত। যে রুমে এসি লাগাবেন তাতে যদি জানালা থাকে তবে পছন্দ অনুসারে ভালো ব্র্যান্ড দেখে ‘উইন্ডো এসি’ কিনে নিতে পারেন। আপনার ঘরের আকার যদি ছোট হয় তাহলে এ ধরনের এসি কেনা যেতে পারে। ঘরের আকার বড় হলে বড় লাগবে এসি এবং ঘরের আকার ছোট হলে ছোট এসি।

আপনার ঘর ছোট,বড়,মাঝারি যেমনই হোক না কেন, সব কিছুর সমধান আপনি গ্রী এর কাছে পাবেন সাশ্রয়ী মুল্যে। সব ধরনের ও সব সাইজের এসি গ্রী উৎপাদন করে। তাই আমরা আজকে আলোচনা করবো গ্রী এসির আপডেট দাম ২০২২ গ্রী এসি কিস্তিতে কেনার নিয়ম বা গ্রী এসির মূল্য তালিকা ২০২২নিয়ে। সকল তথ্য জানতে শেষ পর্যন্ত সাথে থাকুন।

 

গ্রী এসি প্রাইস বিডি ২০২২

এসি কেনার কথা মাথায় আসলেই বেশ কিছু বিষয় নিয়ে মানুষকে দ্বিধায় পড়তে দেখা যায়। প্রথম চিন্তা হয় এসির দাম নিয়ে। এর পরেই সবাই চিন্তা করে এসির রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে। অনেকেই মনে করেন, এসি রক্ষণাবেক্ষণ বেশ ঝামেলাপূর্ণ ও কঠিন কাজ এবং তাঁরা কেনার পর এর সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারবেন না। অনেকেই মনে করেন এসি রক্ষণাবেক্ষণ অনেক ব্যয়বহুল আবার আরেকটি ধারণা হচ্ছে, এসি চালালে বিদ্যুৎ বিল অনেক বেশি আসে। অথচ বাস্তবে বিষয়গুলো বেশ ভিন্ন মূলত, এসি কেনার আগে এসি সম্পর্কে একটু ধারণা রাখলে এসব বিষয় নিয়ে চিন্তায় পড়তে হয় না। তাই সকল তথ্য আপনাদের কাছে সহজে তুলে ধরার জন্যেই আজকের এই পোস্ট।

 

আজকের গ্রী এসির মূল্য তালিকা । Gree এসির দাম ২০২২

এসির দাম ব্র্যান্ড এর ওপর এসির দাম অনেকটা নির্ভর করে । বাজারে ‘টন’ হিসেবে এসি পাওয়া যায় এবং যে ঘরে এসি লাগানো হবে, তার আয়তনের ওপর নির্ভর করে এসি কিনতে হয়। এসির ক্ষমতা যাচাইয়ের পরেই আসে স্প্লিট নাকি উইন্ডো এসি ভালো হবে, সে প্রশ্ন। উইন্ডো এসিতে আওয়াজ বেশি হয় বলে স্প্লিট এসিই সাধারণত সবার প্রথম পছন্দ। এ ছাড়া স্প্লিট এসিতে ঘর বেশ দ্রুত ঠান্ডাও হয়।

বর্তমানে ২০২২ সালে যে এসি গুলো বাজারে ছেড়েছে গ্রী আমরা আজকে সেই এসি গুলোর দাম নিয়ে আলোচনা করব। যেহেতু আপনারা এসি কিনবেন বলে চিন্তা তাই আপনাদের আগের দাম বা পূরনো মডেল বিষয়ে যানিয়ে জানিয়ে কোনো লাভ নেই। আপনাদের জানাতে হবে বর্তমান বাজার মূল্য এবং সেই অনুপাতে কি ধরনের ডিসকাউন্ট এবং কিস্তিতে নিলে কি ধরনের সুবিধা আছে । আমরা আমাদের এই পোস্ট জুড়ে এই বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করবো।

 

গ্রী এসি প্রাইস ইন বাংলাদেশ ২০২২

সাশ্রয়ী মূল্যে উচ্চমানের এয়ার কন্ডিশনার দিয়ে দেশের বাজারে শীর্ষস্থান দখল করেছে গ্রী। দেশের ভেতরে ক্রেতারা ঘরে বসে ফোন করলেই কাছাকাছি প্লাজা। অথবা ডিস্ট্রিবিউটর শোরুম থেকে ক্যাশ অন ডেলিভারি সুবিধায় গ্রী পণ্য পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। তাই গ্রাহক চাহিদা ও বিক্রিতে শীর্ষে এখন গ্রী এসি। যার পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরে গ্রী এসির বিক্রি বেড়েছে অনেক।  বর্তমানে বেশকিছু গ্রি এসি বাজারে রয়েছে , বাজারে থাকা এসি গুলোর মডেল নাম,দাম ও বিস্তারিত নিচে দেওয়া হলোঃ

Gree GS-18NFA410 1.5 Ton Fairy Split AC-

Gree GS-18NFA410 এয়ার কন্ডিশনার আবাসিক এবং বাণিজ্যিক উভয় ক্ষেত্রেই উপযোগী, LED ডিসপ্লে, আরামদায়ক ঘুমের মুড। গ্রী এসি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিদ্যুতের খরচ কমাতে এবং সর্বাধিক সঞ্চয় করতে ঠাণ্ডা বা গরম করার সময় অভ্যন্তরের তাপমাত্রা সামঞ্জস্য করে।

এসি টাইপ- স্প্লিট এসি

বিটিইউ- 1.5 টন 18000 বিটিইউ

ফিল্টার টাইপ- ধোয়া যায় এয়ার পিউরিফাই ফিল্টার

এয়ার কন্ট্রোল- ঠান্ডা বাতাস

রিমোট কন্ট্রোল। নন-ইনভার্টার অন্যান্য বৈশিষ্ট্য আরামদায়ক ঘুমের মুড রয়েছে। Gree GS-18NFA410 মডেলের এসিটি বর্তমানে বাংলাদেশে ৪৭,৯৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

 

Gree GS-24CT410 2 Ton Anti Cool Wind Split Air Conditioner-

Gree GS-24CT410 2 টন স্প্লিট এয়ার কন্ডিশনার রয়েছে 24000 BTU ক্ষমতা, 850 m3/h এয়ার সার্কুলেশন, মাল্টি ফ্যান রেট অফ স্পিড, ওয়াইড অ্যাঞ্জেল লাউভার, এয়ার সার্কুলেশন রুট ম্যানেজমেন্ট, আরামদায়ক ঘুমানোর পদ্ধতি, বেশ স্টাইল, অ্যান্টি-কুল উইন্ড, সময়, টার্বো কম্প্রেসার বোতাম, টাইম ডিসপ্লে, স্ব-নির্ণয়, পরিষ্কারযোগ্য বায়ু পরিষ্কার পরিস্রাবণ, মেমরি ফাংশন, সুরক্ষিত, স্বয়ংক্রিয় ফাংশন, চমত্কার ফিন কনডেনসার। ব্রিলিয়ান্ট ডি-ফ্রস্টিং, কম ভোল্ট স্টার্ট আপ, কম তাপ পরিসীমা স্টার্ট আপ। ডিহাইড্রেটিং ফাংশন, স্বয়ংক্রিয় তাজা, LED ব্যবস্থাপনা। সফট স্টার্ট, 1018 x 325 x 323 মিমি ইনডোর এবং 955 x 700 x 396। আউটডোর ডাইমেনশন, 15 কেজি ইনডোর এবং 49 কেজি আউটডোর ওজন।

এসি টাইপ- স্প্লিট এসি

কভারেজ- 200 – 270 বর্গফুট

ফিল্টার টাইপ- ধোয়া যায় এয়ার পিউরিফাই ফিল্টার।

ফ্যান স্পিড- মাল্টি ফ্যান স্পিড এবং ওয়াইড অ্যাঞ্জেল লুভারস।

কুলিং স্পিড – টার্বো এবং ম্যাক্স স্পিড কুলিং

এয়ার কন্ট্রোল- অ্যাডজাস্টেবল এয়ার ফ্লো, অটো শাট ফ্ল্যাপ, ডাবল অটো সুইং, আপ/ডাউন সুইং ফ্ল্যাপ

রিমোট কন্ট্রোল। তাপমাত্রা সামঞ্জস্য ডিজিটাল তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ। শক্তি সাশ্রয়ী শক্তি সঞ্চয় পাওয়ার খরচ কম ভোল্টেজ স্টার্ট আপ। এবং মেমরি ফাংশন এবং স্বয়ংক্রিয় অপারেশন। সুবিধা রয়েছে এই মডেলের এসির বাজার মুল্য ৫৪,৯৯০ টাকা।

 

Gree GS-18CT 1.5 Ton 18000 BTU Split Type Air Conditioner-

Gree GS-18CT স্প্লিট এয়ার কন্ডিশনারে রয়েছে 1.5 টন 18000 BTU, 1540 ওয়াট ইনপুট ক্ষমতা, মাল্টি ফ্যান স্পিড, ওয়াইড অ্যাঞ্জেল এসি লাউভার। আরামদায়ক স্লিপিং মোড, অ্যান্টি-কুল উইন্ড, টার্বো বোতাম, ঘড়ি প্রদর্শন, স্ব-নির্ণয়। ধোয়া যায় এমন বায়ু পরিশোধন ফিল্টার । মেমরি ফাংশন, লক, স্বয়ংক্রিয় অপারেশন, ইনভার্টার এবং সিস্টেম চালু/বন্ধ। গোল্ডেন ফিন কনডেনসার, লো ভোল্টেজ স্টার্টআপ। কম-তাপমাত্রার স্টার্টআপ, ইন্টেলিজেন্ট ডিফ্রস্টিং, ড্রাইং অপারেশন। অটো ক্লিন, এলইডি কন্ট্রোল এবং সফট স্টার্ট। গোল্ডেন ফিন কনডেন্সার, বুদ্ধিমান ডিফ্রস্টিং এবং আপ/ডাউন এয়ার আউটলেট। অটো রিস্টার্ট/অটো স্লিপ, এয়ারফ্লো ডিরেকশনাল কন্ট্রোল।

এসি টাইপ- স্প্লিট এসি

কভারেজ- 100-150 বর্গফুট

ফিল্টার টাইপ- অ্যান্টি ফাঙ্গাস বা ব্যাকটেরিয়া ফিল্টার, নেগেটিভ এয়ার আয়ন ডিওডোরাইজিং ফিল্টার, গন্ধ অপসারণ ফাংশন

ফ্যান স্পিড – এয়ার সার্কুলেশন হাই M3/ঘন্টা, ইনার-540, বাইরের 1760-1830

বায়ু নিয়ন্ত্রণ- স্বয়ংক্রিয় বায়ু প্রবাহ সমন্বয়

 

রিমোট কন্ট্রোল। টাইমার, অটো রিস্টার্ট, স্লিপ মোড। তাপমাত্রা সামঞ্জস্য বিদ্যুৎ খরচ বিদ্যুৎ খরচ 1.27 – 1.33 কিলোওয়াট, ইনপুট পাওয়ার 220 – 240/ 1/ 50, অপারেটিং কারেন্ট এম্পস 6.5। অটো রিস্টার্ট ফাংশন, আর্দ্রতা অপসারণ, সুপার শান্ত, সুপার পাওয়ার সেভিং। এটির বাজার মুল্য ৪৫ হাজার টাকা।

Gree GS24LM410 2.0 Ton Split Type Air Conditioner-

Gree GS24LM410 এ 2 টন এসি আছে। এটিতে একটি শক্তিশালী। এবং গ্রীষ্মমন্ডলীয় সংকোচকারী বা ম্যাজিক মিরর রয়েছে। এসি কম ভোল্টেজ, আরামদায়ক ঘুমানোর মোড এবং মেমরি ফাংশনে শুরু হবে।

এসি টাইপ-স্প্লিট এসি

কভারেজ- 150-220 বর্গফুট

কুলিং স্পিড- টার্বো কুলিং

রিমোট কন্ট্রোল। অন-অফ টাইমার। স্বয়ংক্রিয় শুকানোর অপারেশন, স্বয়ং নির্ণয় অন-অফ টাইমার, কপার পাইপ দক্ষ এবং শান্ত নকশা। Gree GS24LM410 বর্তমানে বাংলাদেশে ৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

 

Gree GSH-12FA410 1-Ton Split Air Conditioner-

গ্রী GSH-12FA410 শক্তি সঞ্চয় করতে শীতল বা গরম করার সময়। অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সামঞ্জস্য করেছে।
এটিতে একটি আরামদায়ক ঘুমের মুড, ঠান্ডা বাতাস প্রতিরোধ, ঘড়ি প্রদর্শন, এলইডি ডিসপ্লে রয়েছে।

এসি টাইপ- স্প্লিট এসি

কভারেজ- 120 বর্গফুট

ফিল্টার টাইপ- ধোয়া যায় এয়ার পিউরিফাই ফিল্টার

ফ্যান স্পিড- টার্বো কুলিং

কুলিং স্পিড- টার্বো এবং ম্যাক্স স্পিড কুলিং

এয়ার কন্ট্রোল- এয়ার ফ্লো ডিরেকশন অ্যাডজাস্টেবল

রিমোট কন্ট্রোল। তাপমাত্রা সামঞ্জস্য অটো / ম্যানুয়াল। শক্তি সাশ্রয়ী শক্তি সঞ্চয়। পাওয়ার খরচ কম ভোল্টেজ স্টার্ট আপ। Gree GSH-12FA410 বর্তমানে বাংলাদেশে ৩৬৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

 

Gree GS-12CT410 1 Ton Digital Temperature Control Split AC-

Gree GS-12CT410 1 টন ওয়াল মাউন্ট স্প্লিট AC এর 12000 BTU ক্ষমতা, 120-140 Sqft কভারেজ এলাকা, অটো ক্লিন, মাল্টি ফ্যানের গতি, ডিজিটাল তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ, 220V/1Ph/50Hz পাওয়ার সাপ্লাই, 845 x 275 x 180mm ইনডোর ডাইমেনশন অভ্যন্তরীণ ওজন।

এসি টাইপ- স্প্লিট এসি

কভারেজ- 120-140 বর্গফুট

ফিল্টার টাইপ- অটো ক্লিন

ফ্যান স্পিড- মাল্টি ফ্যান স্পিড

কুলিং স্পিড- টার্বো এবং ম্যাক্স স্পিড কুলিং

রিমোট কন্ট্রোল। ডিজিটাল তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ। শক্তি সাশ্রয়ের জন্য শক্তি দক্ষ 3 পর্যায়। বিদ্যুৎ খরচ 1.35 কিলোওয়াট। LED ডিসপ্লের আকর্ষনীয় এই এসির মুল্য ৩৪ হাজার টাকা।

 

গ্রী ইনভার্টার এসির দাম ২০২২

গ্রী ইনভার্টার এসির কম্প্রেসরে ১০ বছরের গ্যারান্টি, ৬ মাসের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি সুবিধা, এক্সচেঞ্জ অফারে যেকোনো ব্র্যান্ডের এসি বদলে গ্রী নতুন এসি কেনার সুযোগ রয়েছে। এ ছাড়া বিনা মূল্যে ইনস্টলেশন সুবিধা পেতে পারেন। তাছাড়া গ্রী একটি চীনা এসি নির্মাতা যা “ওয়ার্ল্ড ব্র্যান্ড” হিসাবে প্রসিদ্ধ।গ্রী এসির কোয়ালিটি, সার্ভিস, এবং কম দামের জন্য বাংলাদেশেও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। তাই গ্রী এসির বেশকিছু সুবিধা আছে। গ্রী এসির কম্পেসারের লাইফ টাইম বেশি থাকে যার ফলে এক কম্প্রসার দিয়েই এসি দিয়েই অনেক দিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়।

  • গ্রি এসি বর্তমান বাজারে ১টন, ১.৫ টন, ২ টন, ২.৫ টন থেকে ৫ টন পর্যন্ত হয়ে থাকে বিধায় চাহিদা অনুযায়ী এসি ক্রয় করা যায়।
  •  
  • বিদ্যুৎ খরচ কমানোর জন্য ইনভার্টার প্রযুক্তি যুক্ত গ্রী এসি পাওয়া যায়।
  •  
  • অল্প দামের মধ্যে নন-ইনভার্টার গ্রী এসি পাওয়া যায় যেগুলো এনার্জি সেভিং হয়ে থাকে।
  •  
  • গ্রী এসি যেকোন পরিবেশে সুন্দর কাজ করে।

 

গ্রী ইনভার্টার, নন-ইনভার্টার এসি

আপনারা নিশ্চয় লক্ষ্য করেছেন, অনেক ইলেকট্রনিক্স পণ্যের গায়েই এই ইনভার্টার বা নন-ইনভার্টার লেখা থাকে। এসব পণ্যের দাম আর সুবিধাতেও থাকে অনেক পার্থক্য। ইনভার্টার এসির মধ্যে সুবিধা হচ্ছে যে, ইনভার্টার এসির কম্প্রেসার প্রয়োজনমত নিজস্ব চলার গতি পরিবর্তন করতে পারে। ইনভার্টার এসিতে এমন একটি সেন্সর থাকে যেটি ঘরের তাপমাত্রার উপর নির্ভর করে কম্প্রেশারটিকে পুরোপুরি বন্ধ না করে, মোটরটির চলার গতি কমিয়ে দেয়। এর কারণেই বিদ্যুৎ খরচ কমে আসে।

অপরদিকে, সাধারণ বা নন ইনভার্টার এসির কম্প্রেসার বার বার চালু বন্ধ হয় তাই অনেক বেশি বিদ্যুৎ খরচ করে। সাধারণ এসিতে প্রতিবার কম্প্রেসার ইউনিট চালু হবার সময় অনেক বিদ্যুৎ টানে, এ কারণেই মূলত বিদ্যুৎের খরচ বাড়ে, ফলে বিলও বেশি আসে।

 

গ্রী এসির নতুন মডেল ২০২২

গ্রী বর্তমানে বাংলাদেশে বড় ইলেক্টট্রনিক পন্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান তাই তাদের পন্য ভান্ডার ও অফুরন্ত । প্রতিনিয়তই গ্রী তাদের এসিতে বিভিন্ন মডেল যুক্ত করছে এবং বিভিন্ন নতুন নতুন ফিচার যুক্ত করছে। এই নতুন মডেল ও নতুন ফিচার গুলো যদি সংগ্রহ করতে চান তাহলে আপনাকে গ্রী এর নতুন মডেলের এসি কিনতে হবে। তাই এখনে আমরা চেষ্টা করব আপনাদের বিভিন্ন নতুন মডেলের এসির সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়ার যার মাধ্যমে আপনি গ্রী এসি কেনার ক্ষেত্রে সেরা সিদ্ধান্তটি নিতে পারেন।

 

কিস্তিতে গ্রী এসি কেনার নিয়ম

গ্রী এসি কিস্তিতে কিনতে হলে আপনাকে প্রথমে সরাসরি গ্রী শোরুম বা ই-প্লাজায় যেতে হবে। তারপরে তাদের সঙ্গে আলোচনা যে আপনি তাদের থেকে কিস্তিতে এসি কিনতে চান তারপরে সেই ই-প্লাজার সেলস ম্যানই আপনার সব ব্যাবস্থা করে দিবে। তবে এসি কেনার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে ৪০% ডাউন পেমেন্ট করতে হবে। অর্থাৎ এসির যে বাজার মূল্য রয়েছে সেখান থেকে আপনাকে ৪০% টাকা প্রথমেই জমা দিতে হবে এবং পরবর্তীতে বাকি যেই ৬০% টাকা থাকবে সেটা কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে। অনেক সময় কিস্তিতে এসি কেনার ক্ষেত্রে আপনাকে ডিসকাউন্টও প্রদান করা হবে।

আশাকরি এই আর্টিকেলটি আপনার উপকার করেছে। শেষ পর্যন্ত সাথে থাকার জন্যে ধন্যবাদ।