মিনারা বেগম পুকুরে কি পরিমাণ ইউরিয়া সার প্রয়ােগ করেছিলেন? নির্ণয় কর।

160 viewsকৃষি শিক্ষা
0

মিনারা বেগম পুকুরে কি পরিমাণ ইউরিয়া সার প্রয়ােগ করেছিলেন? নির্ণয় কর। Class 8 Agriculture 6th Week Assignment Answer. ক্লাস ৮ / অষ্টম শ্রেণীর এর কৃষিশিক্ষা ষষ্ঠ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট সমাধান। Oshtom Srenir Krishi Sikkha 6 Soptaher Assignment Er Uttor ba Somadhan. Class Eight 2nd & Last Agriculture Assignment Solve 2020.

The creative question of the sixth week of eighth grade agricultural education assignment mentions that Minara Begum of Sakhipur village took the initiative to cultivate fish in the pond next to her house. For this he prepared the pond with different types of fertilizers on the advice of the fisheries officer. Now the question is to determine the amount of urea fertilizer applied by Minara Begum in the pond. To answer this question, we need to collect information from the textbook on the preparation of ponds for mixed fish farming in the fifth chapter of agricultural production.

To answer the question, we need to know how to apply urea fertilizer to cultivate Rui, Katla Silver Cup, Carpio fish in 5th Sotok land. It is possible to answer the question only if we can determine the correct information. Below we have tried to answer appropriately.

 

মিনারা বেগম পুকুরে কি পরিমাণ ইউরিয়া সার প্রয়ােগ করেছিলেন? নির্ণয় কর।

অষ্টম শ্রেণীর ষষ্ঠ সপ্তাহের কৃষি শিক্ষা এসাইনমেন্ট এর সৃজনশীল প্রশ্নে উল্লেখ আছে সখিপুর গ্রামের মিনারা বেগম বাড়ির পাশের পুকুরে মাছ চাষের উদ্যোগ নেন। এজন্য তিনি মৎস্য কর্মকর্তার পরামর্শে নিয়ে বিভিন্ন প্রকার সার দিয়ে পুকুর প্রস্তুত করেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে মিনারা বেগম পুকুরে কি পরিমান ইউরিয়া সার প্রয়োগ করেছিলেন সেটি নির্ণয় করতে হবে। এ প্রশ্নের উত্তর দিতে আমাদের পাঠ্য বই থেকে পঞ্চম অধ্যায় কৃষিজ উৎপাদন এর মিশ্র মাছ চাষের জন্য পুকুর প্রস্তুতি থেকে তথ্য সংগ্রহ করা লাগবে। 

প্রশ্নের উত্তর করতে আমাদের জানা লাগবে ৫ শতক জমিতে রুই, কাতলা সিলভার কাপ, কার্পিও জাতের মাছ চাষ করতে কেমন ইউরিয়া সার প্রয়োগের প্রয়োজন রয়েছে। সঠিক তথ্য নির্ণয় করতে পারলেই প্রশ্নের উত্তর করা সম্ভব। নিচে আমরা যথাযথ উত্তর করার চেষ্টা করেছি।

সৃজনশীল প্রশ্ন:

১। সখিপুর গ্রামের মিনারা বেগম বাড়ির পাশের ৫ শতক জমির পুকুরে রুই, কাতলা, সিলভার কার্প ও কার্পিও জাতের মাছ চাষের উদ্যোগ নেন। এজন্য তিনি মৎস্য কর্মকর্তার পরামর্শ নিয়ে প্রয়ােজনীয় চুন, সার প্রয়ােগ করে পুকুর প্রস্তুত করেন।

ক) মিনারা বেগম পুকুরে কি পরিমাণ ইউরিয়া সার প্রয়ােগ করেছিলেন? নির্ণয় কর।

উত্তরঃ ফসল ফলানোর আগে যেমন কৃষিজমি প্রস্তুত করে নিতে হয়, তেমন মাছ চাষ করার পূর্বেও পুকুর প্রস্তুত করে নিতে হয়। উদ্দীপকে মিনারা বেগম ৫ শতক জমির পুকুরে রুই, কাতলা, সিলভার কার্প ও কাপিও জাতের মাছ চাষ করবেন। এ ধরনের মাছ একসাথে চাষ করার পদ্ধতিকে মিশ্র চাষ পদ্ধতি বলে। এ ধরনের মাছ চাষের জন্য পুকুর উপযোগী করার জন্য জমিতে সঠিক পরিমানে ইউরিয়া সার প্রয়োগ করা অবশ্যক।

ইউরিয়া সার প্রয়োগের পরিমাণ নির্ণয়ঃ পুকুরে প্রাকৃতির খাদ্য তৈরির জন্য সার প্রয়োগ করতে হয়। চুন প্রয়োগের ৭-১০ দিন পর সার দিতে হবে।

এক্ষেত্রে প্রতি শতকে ১০০-১৫০ গ্রাম ইউরিয়া সার প্রয়োগ করতে হবে।

উদ্দীপকে মিনারা বেগম ৫ শতক জমিতে ইউরিয়া সার প্রয়োগ করবেন। (৫*১০০) অথবা (৫*১৫০) গ্রাম= (৫০০-৭৫০) গ্রাম।
অতএব মিনারা বেগম তার ৫ শতক জমিতে (৫০০-৭৫০) গ্রাম। ইউরিয়া সার প্রয়োগ করবেন।

Class 8 Agriculture 6th Week Assignment Answer

বিস্তারিত পড়ুন

পাঠ ৯ : মিশ্র চাষের জন্য পুকুর প্রস্তুতি

ফসল ফলানাের জন্য চারা রােপণের আগে জমি চাষ, সেচ দেওয়া, সার প্রয়ােগ ইত্যাদির মাধ্যমে | কৃষিজমি প্রস্তুত করতে হয়। পুকুরে পােনা ছাড়ার আগেও তেমনি পুকুর প্রস্তুত করে নিতে হয়। মাছ চাষের জন্য পুকুর প্রস্তুতির ধাপগুলাে নিচে বর্ণনা করা হলাে১। পুকুরের পাড় ও তলদেশ মেরামত : পুকুরের পাড় ভাঙা থাকলে তা উঁচু করে বেঁধে দিতে হবে। পাড়ে বড় গাছপালা থাকলে তার ডাল ঘেঁটে দিতে হবে। এতে করে পুকুরে সূর্যের আলাে পড়বে ও প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরি হবে। পুকুরের তলায় অতিরিক্ত কাদা থাকলে বিষাক্ত গ্যাস তৈরি হয়। ৩-৪ বছর পর পর একবার পুকুর শুকিয়ে তলার অতিরিক্ত কাদা তুলে ফেলা উচিত ও রােদে পুকুর কয়েকদিন শুকানাে উচিত।

২। আগাছা পরিষ্কার : পুকুরে জলজ আগাছা যেমন-কচুরিপানা, ক্ষুদিপানা ইত্যাদি পানিতে মাছের | খাদ্য প্লাংকটনের পুষ্টি শোষণ করে নেয় ও পুকুরে সূর্যের আলাে পড়তে বাধা দেয়। তাই পুকুরে সব | ধরনের জলজ আগাছা পরিষ্কার করে ফেলতে হবে।

৩। রাক্ষুসে ও অপ্রয়ােজনীয় মাছ অপসারণ : শােল, গজার, চিতল, বােয়াল ইত্যাদি চাষের মাছ বা পােনা খেয়ে ফেলে। আবার চাষকৃত প্রজাতি ছাড়া অন্য মাছ চাষকৃত মাছের সাথে খাদ্যের জন্য প্রতিযােগিতা করে। পুকুরের পানি শুকিয়ে এসব মাছ ধরে ফেলা যায়। পুকুরে পানি কম থাকলে বারবার জাল টেনেও তা করা যায়। পুকুরে ১ ফুট বা ৩০ সে. মি. গভীরতার জন্য প্রতি শতকে ৩০-৩৫ গ্রাম মাছ মারার বিষ রােটেনন পাউডার পানিতে গুলে সমস্ত পুকুরে ছিটিয়ে দিতে হবে। এরপর জাল টেনে পুকুরের পানি উলটপালট করে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর সমস্ত মাছ পানির উপর ভেসে উঠলে তা তুলে ফেলতে হবে। রােটেনন ব্যবহার করা মৃত মাছ খাওয়া যাবে।

৪। চুন প্রয়োগ : পুকুর শুকনা হলে প্রতি শতকে ১-২ কেজি চুন পাউডার করে তলায় ছিটিয়ে দিতে হবে। পুকুরে পানি থাকলে বাশক্তি বা ঘামে গুলে ঠাণ্ডা করে সমস্ত পুকুরে ছিটিয়ে দিতে হবে। চুন মাটি ও পানি জীবাণু মুক্ত করে ও উর্বরতা বৃদ্ধি করে, পানির ঘোলাটে অবস্থা দূর করে এবং তলদেশের বিষাক্ত গ্যাস দূর করে। ৫। সার প্রয়োগ। পুকুরে প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরির জন্য সার প্রস্লোগ করতে হয়। চুন প্রয়ােগের ৭-১০ | দিন পর সার দিতে হবে। জৈব সান্ত্রের জন্য পুকুরে প্রতি শতকে ৫-৭ কেজি গােবর বা ৩-৪ কেজি

আঁস মুরগির বিষ্ঠা এবং অজৈব সালের মধ্যে প্রতি শতকে ১০০-১৫০ গ্রাম ইউরিয়া, ৫০-৭৫ গ্রাম টিএসপি ও ২০-৩০ গ্রাম এমওপি সার প্রয়ােগ করতে হবে। সার প্রয়ােগের ৫-৭ দিন পর পুকুরের পানিতে প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরি হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করে পুকুরে পােন ছাড়তে হবে। কাজ : শিক্ষার্থীরা শিক্ষককে সাথে নিয়ে পার্শ্ববর্তী কোনাে পুকুরের পাড়ে গিয়ে পুকুরের পানিতে প্রাকৃতিকদের উপস্থিতি পরীক্ষা করবে।

পানিতে প্রাকৃজিক খাদ্য প্রয়ীক্ষা ও সার প্রয়ােগের ৫-৭ দিন পর পুকুরের পানিতে প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরি হয়েছে কি না তা পত্নীক্ষা করতে হবে। এজন্য ২০ সেমি, ব্যাসযুক্ত টিনের তৈরি একটি সাদা-কালাে থালা (সেকিডি) সূল দ্বারা পানিতে ডােবানাের পর যদি ২৫-৩০ সেমি. গর্জীরতায় | পালা না দেখা যায় তবে বুঝতে হবে পুকুরে প্রাকৃক্তিক খাদ্য তৈরি হয়েছে।

অথবা হাতের কনুই পর্ব ডুবিয়ে যদি হাতের তালু না দেখা যায় তবে বুঝতে হবে পরিমিত প্রাকৃতিক খাদ্য রয়েছে। অন্যথায় পুনরায় কিছু সার দিয়ে ২-৩ দিন পর প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরি হয়েছে কি না। দেখতে হবে।

Changed status to publish
Add a Comment
Write your answer.