OthersTechnologyTravel

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম ২০২২ – eticket.railway.gov.bd

জেনে নিন কিভাবে অনলাইনে নতুন নিয়মে ট্রেনের টিকেট কাটবেন, অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট কাটার নিয়ম ২০২২

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম ২০২২: অনলাইন ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম জনতে চান? আপনি কি জানতে চান কিভাবে বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য অনলাইন ই-টিকেট ক্রয় করতে হয়?

eticket.railway.gov.bd এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইন ট্রেনের টিকেট কেনা যায় তা জানতে এই নিবন্ধটি পড়ুন

রেল হচ্ছে ভ্রমনের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ মাধ্যম, বাংলাদেশে এমন মানুষ খুজে পাওয়া যাবে নাহ যে ট্রেনে ভ্রমন করতে চায় নাহ। ট্রেনে ভ্রমন করার মজাই আলাদা। কিছু দিন আগে রেল মন্ত্রণালয় কাছ থেকে ই-টিকেট বিক্রির স্বত্বের চুক্তি পেয়েছেন সহজ ডট কম কিংবা (Shohoz-Synesis-Vinsen JV)।

রেলপথ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে অনলাইন টিকেট সিস্টেম “Shohoz” ২৬শে মার্চ, ২০২২ থেকে ই-টিকেট বিক্রি চালিয়ে যাবে। বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকেট ব্যবস্থা পরিচালনা করার জন্য “Shohoz-Synesis-Vinsen JV” এর সাথে একটি পাঁচ বছরের চুক্তি হয়েছে। এর আগে সিএনএস এ প্রকল্পের সাথে জড়িত ছিল।

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট ২০২২

“Shohoz” দায়িত্ব বুঝে নেয়ার পর থেকে এখন নতুন নিয়মে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটতে হবে, নতুন নিয়মের পাশা পাশি নতুন ওয়েবসাইট ও চালু করছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। এখন থেকে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটতে হলে eticket.railway.gov.bd এই ওয়েবসাইট এর মাদ্ধমে টিকেট বুকিং ও ক্রয় করতে হবে।

আপনি জেনে অবাক হবেন মোট ৯০,০০০ টি রেলের টিকেট দৈনিক জারি করা হয়, মোট ২৭ লাখ টিকেট কম্পিউটার ব্যবহার করে জারি করা হয় প্রতি মাসে। এই টিকেটগুলির প্রায় অর্ধেক অনলাইন বা মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে জারি করা হয়।

আপনি যদি বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য অনলাইন ট্রেন টিকেট কিনতে চান তাহলে আপনাকে eticket.railway.gov.bd-এ রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এবং নিজের জন্য একটি প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। একটি প্রোফাইল তৈরি করার পরে আপনি ট্রেনের সময়সূচী দেখতে পাবেন, এর পর আপনি আপনার মনোনীত অবস্থান নির্বাচন করতে পারেন এবং আপনার ভ্রমণের উদ্দেশ্যের জন্য টিকেট বুক করতে পারবেন।

নিন্মে আমরা অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম ২০২২ সালের জন্য দেয়া হল। 

অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট কাটার নিয়ম ২০২২ বাংলাদেশ রেলওয়ে

আপনি চাইলে আজ থেকেই নতুন নিয়মে বাংলাদেশ রেলওয়ের অনলাইন টিকেট কিনতে পারবেন। নতুন প্রক্রিয়াটি আগের CDN প্রক্রিয়ার থেকে ভিন্ন। এই নতুন সার্ভারটি একটি নতুন ওয়েবসাইট সহ ২৬ মার্চ ২০২২ শনিবার চালু করা হয়েছে। নতুন আসন নির্বাচন ব্যবস্থা, এবং নতুন সমন্বিত অনলাইন রেল টিকেট দেখার ক্ষমতা। ফলস্বরূপ, আপনি এখানে নতুন কেনার পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারেন। বাংলাদেশের সমস্ত ট্রেন ভ্রমন পিপাসুদের জন্য এটিকে সহজ করার জন্য, আমরা ট্রেনের আসনের জন্য অনলাইন ই-টিকেট কীভাবে বুক করতে হয় সে সম্পর্কে ধারনা দেয়ার চেষ্টা করছি।

তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম ২০২২।

ধাপ ১: প্রথমে www.eticket.railway.gov.bd-এ যান

ধাপ ২: ওয়েবসাইটে আপনার যাবতীয় তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন।

ধাপ ৩: আপনার অ্যাকাউন্টের লগইন পৃষ্ঠায় যান এবং আপনার (ব্যবহারকারীর) নাম (ইমেইল) এবং পাসওয়ার্ড টাইপ করুন।

ধাপ ৪: ড্রপ-ডাউন মেনু থেকে “ক্রয়” নির্বাচন করুন।

ধাপ ৫: স্টেশন থেকে দূরত্ব, তারিখ, ট্রেনের ক্লাস এবং প্রাপ্তবয়স্ক এবং বাচ্চাদের আসন সংখ্যা লিখুন।

ধাপ ৬: অনুসন্ধানে ক্লিক করুন, এবং আপনি আপনার প্রদত্ত দিনের এবং নিয়মিত ট্রেনের জন্য উপলব্ধ আসনের একটি তালিকা পাবেন।

ধাপ ৭: একটি ট্রেন বেছে নিন এবং ম্যানুয়ালি বা স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার সিট রিজার্ভ করুন।

এই পদ্ধতিগুলি অনুসরণ করে, আপনার আসন সংরক্ষণ নিশ্চিত করা হয়েছে। এখন আপনি আপনার ট্রেনের ই-টিকেটের অনলাইন কপির জন্য অর্থ প্রদান করতে পারেন।

কিভাবে ট্রেনের ই-টিকেটের জন্য অর্থ প্রদান করবেন তা জানার জন্য নিচে দেখুন।

অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট পেমেন্ট প্রক্রিয়া ২০২২ বাংলাদেশ রেলওয়ে

আপনার নির্ধারিত গন্তব্বের ট্রেনের জন্য ই-টিকেট বুক করার পরে, এখন আপনার ই-টিকেটের জন্য অর্থ প্রদানের সময়। এখানে আমরা আপনাকে আপনার ই-টিকেটের জন্য অর্থ প্রদানের জন্য গাইড করব তাই নীচে উল্লিখিত এই পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন৷

ধাপ ১: আপনি আপনার সিট বুক করার পরে, পেমেন্ট এ যান।

ধাপ ২: এর পরে, আপনি বিভিন্ন ব্যাংকের নাম এবং লোগো দেখতে পাবেন। যেমন – ডিবিবিএল, ব্র্যাক ব্যাংক, সাথে মোবাইল ব্যাংকিং যেমন – বিকাশ, রকেট, এবং কার্ড সেবা – ভিসা, মাস্টার কার্ড এবং আরও অনেক কিছু দেখতে পাবেন।

ধাপ ৩: একটি ব্যাংক সিলেক্ট করুন অথবা বা মোবাইল ব্যাংকিং বেছে নিন যেখান থেকে টিকেটের অর্থপ্রদান করবেন।

ধাপ ৪: আপনার অ্যাকাউন্ট নম্বর প্রবেশ করার পরে নিশ্চিত করুন এ ক্লিক করুন।

ধাপ ৫: আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টের নিবন্ধিত মোবাইল নম্বরে একটি নিরাপত্তা কোড (OTP কোড) পাঠানো হবে।

ধাপ ৬: ওটিপি কোড প্রবেশ করান এরপর আপনার অ্যাকাউন্টের পিন লিখুন।

ধাপ ৭: আপনার টিকেট কেনার জন্য, নিশ্চিত করুন এ ক্লিক করুন।

আপনি আপনার ই-টিকেটের পেমেন্ট সম্পূর্ণ করার পরে, ৩০ মিনিটের মধ্যে ইমেলের মাধ্যমে আপনাকে আপনার ই-টিকেটের পেমেন্ট সম্পন্ন হয়েছে এই রকম বার্তা প্রেরন করা করা হবে। আপনি আপনার রেলওয়ে অ্যাকাউন্ট ড্যাশবোর্ডে আপনার ই-টিকেট দেখতে পাবেন।

এখন এই অনলাইনে ট্রেনের ই-টিকেট টি আপনি প্রিন্ট করে নিন এবং আপনার ভ্রমনের সময় আপনার ভোটার আইডি কার্ড ( জাতীয় পরিচয় পত্র ) সাথে নিয়ে কাউন্টার থেকে অরিজিনাল টিকেটটি সংগ্রহ করুন।

আশা করছি আমরা বাংলাদেশ রেলওয়ের অনলাইন ট্রেন টিকেট এবং ই-টিকেট ক্রয় বা বুকিং প্রক্রিয়া সম্পর্কিত আপনার সমস্ত প্রশ্নগুলি কভার করতে পেরেছি, তারপরে ও কোন রকম জিজ্ঞাসা থাকলে কমেন্ট করুন। 

Related Articles